বয়স্ক ভাতা আবেদন

0

আপনি যদি বয়স্ক ভাতা আবেদনের সঠিক নিয়ম সম্পর্কে জানতে চান তাহলে আপনার জন্য আমাদের এই কন্টেনটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের এই  মাধ্যমে আপনি বয়স্ক ভাতার অনলাইনে আবেদন, আবেদনের নিয়ম এবং আবেদনের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সম্পর্কে বিস্তারিত ভাবে জানতে পারবেন।

 বয়স্ক ভাতা কি 

 সরকার অনুমোদিত একটি আর্থিক সহযোগিতার মাধ্যম। একটি বিশেষ বয়সের মানুষদের মধ্য থেকে বাছাই করে যারা দুস্থ কর্মহীন এবং একেবারে স্বল্প তাদের কি এই সহযোগিতা দেওয়া হয়। তবে বিশেষের সেবাটি পেতে হলে আপনাকে বেশ কিছু  শর্ত পূরণ করতে হবে।

বয়স্ক ভাতা আবেদনের শর্তাবলী

  •  আবেদনকারীকে অবশ্যই বাংলাদেশের স্থায়ী নাগরিক হতে হবে
  •  আবেদনের ন্যূনতম বয়স ৬২ এবং ৬৫ হলেও সর্বাধিক বয়স্কদের অগ্রধিকার থাকবে
  •  শারীরিকভাবে অক্ষম ব্যক্তিদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে
  •  আর্থিক অবস্থা, আয়ের উৎস, পারিবারিক ব্যয় বিবেচনা করা হবে
  •  তালাকপ্রাপ্ত মহিলা ,পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন , নিঃসন্তান, বিধবা এ ধরনের ব্যক্তিত্বের অগ্রধিকার থাকবে।
  •  ভূমিহীন ব্যক্তিদেরও বিশেষ অগ্রধিকার থাকে, তবে এক্ষেত্রে অবশ্যই ০.৫ একর বা তার কম জমে থাকতে হবে।

বয়স্ক ভাতা আবেদন যাচাই

আবেদন যাচাই করার জন্য আপনাকে প্রথমে এই লিংকে প্রবেশ করতে হবে। এই লিঙ্কে প্রবেশ করে আপনি খুব সহজেই আপনার আবেদনটি যাচাই করতে পারবেন। তবে মনে রাখতে হবে আবেদন করার সময় যে অ্যাপ্লিকেশন ফর্মটি ছিল সেটি থাকতে হবে।

 বয়স্ক ভাতা আবেদন ফরম

 বয়স্ক ভাতা আবেদন করার জন্য অনেকেই চিন্তিত থাকেন যে ফর্মটি কোথায় পাবো? এক্ষেত্রে অনেকেই মনে করেন ইউনিয়ন পরিষদ অথবা উপজেলা থেকে ফর্মটি সংগ্রহ করতে হয়। বিষয়টি একেবারেই সঠিক নয়। আবেদন ফরম আপনি  খুব সহজে অনলাইনের মাধ্যমে সংগ্রহ করে আবেদন করতে পারবেন।

 বয়স্ক ভাতা আবেদন ফরম লিঙ্ক

 উক্ত লিংকে ভিজিট করে আপনারা খুব সহজেই বয়স্ক ভাতার আবেদন ফরমটি সংগ্রহ করতে পারবেন।https://www.mygov.bd/services/info?id=BDGS-1533028690

বয়স্ক ভাতা আবেদন করার নিয়ম

বয়স্ক ভাতা আবেদন করার জন্য প্রথমে আপনাকে উপরের দেওয়া  লিংক টিতে ক্লিক করতে হবে। লিংকটাতে ক্লিক করার পর আপনার সামনে একটি পৃষ্ঠা আসবে। আপনি যদি পূর্বে থেকে সেখানে রেজিস্ট্রেশন করে থাকেন তাহলে লগইন করেই আবেদন করতে পারবেন। তবে পূর্বে রেজিস্ট্রেশন করা না থাকলে প্রথমে রেজিস্ট্রেশন করে নিতে হবে। পরবর্তীতে যা করতে হবে তা নিম্নরূপ:

  •  আবেদন ফরমটি পাবার পর সেখানে লাল তারকা  চিহ্নিত কিছু ঘর থাকবে। সেগুলো আপনাকে অবশ্যই পূরণ করতে হবে। এবং নির্ভুল তথ্য দিয়ে পূরণ করার চেষ্টা করবেন নতুবা আপনার আবেদনটি বাতিল হয়ে যেতে পারে।
  •  লাল তারকা স্থান ছাড়াও আরো কিছু ঘর থাকবে সেগুলো যদি পূরণ করতে পারেন তাহলে করবেন যদি উত্তর ডকুমেন্টসগুলো না থাকে তাহলে পূরণ করার প্রয়োজন নেই।
  •  আপনার আবেদন প্রক্রিয়াটি শেষ হওয়ার আগে আপনি সেটি সংগ্রহ করে রেখে দিতে পারবেন। এবং পরবর্তীতে ড্রাফট করা স্থান থেকে আবার পুনরায় শুরু করতে পারবেন।
  •  সম্পূর্ণ আবেদন প্রক্রিয়াটি শেষ হবার পরে একটি ইউনিক ট্র্যাকিং নম্বর দেওয়া হবে। মনে রাখবেন প্রতিটি আবেদনের জন্য আলাদা আলাদা টেকিং নম্বর দেয়া হয়। উক্ত টেকিং নম্বর ব্যবহার করে আপনি আবেদনের পরবর্তী তথ্য জানতে পারবেন।

আবেদন করতে কত বয়স লাগে

 উক্ত আবেদন করার জন্য একজন মহিলার সর্বনিম্ন ৬২ বছর হতে হবে এবং একজন পুরুষের ৬৫ বছর হতে হবে। তবে অনেকেরই বয়স বেশি হলেও তাদের জাতীয় পরিচয় পত্রে বয়স কম থাকার কারণে আবেদন করতে সক্ষম হয় না। তাই অবশ্যই আবেদন করতে হলে আপনাকে জাতীয় পরিচয় পত্র অনুযায়ী সঠিক বয়স হতে হবে।

 বয়স্ক ভাতা কার্ড চেক

অনলাইনে কার্ড চেক বলতে আমরা বুঝি আবেদনের পর ব্যাক্তিটি ভাতা পাবার জন্য উত্তীর্ণ হয়েছে কিনা। এক্ষেত্রে আবেদনের সময় যে ট্রেকিং নম্বর দেয়া হয়েছিল তা ব্যবহার করে চেক করতে পারবেন। উপরের দেওয়া লিংকে প্রবেশ করে ট্র্যাকিং নম্বর দিয়ে সাবমিট করলেই খুব সহজে আপনি আবেদন ফরমের সর্বশেষ তথ্য দেখতে পারবেন।

 বয়স্ক ভাতা কার্ড ডাউনলোড

 আপনি যদি বয়স্ক ভাতা পাওয়ার জন্য আবেদনে উত্তীর্ণ হন তাহলে আপনাকে একটি বিশেষ ফ্রম প্রদান করা হবে। যেটি ডাউনলোড করার জন্য আপনাকে উপরে দেওয়া লিংকে প্রবেশ করতে হবে। লিংকে প্রবেশ করে আপনার টকিং নম্বরটি ব্যবহার করে আবেদন ফরমটি দেখতে পারবেন। এবং উক্ত আবেদনের ফর্মটির পিডিএফ কপি ডাউনলোড করে প্রিন্ট করে নিতে পারবেন।

 বয়স্ক ভাতা অনলাইন রেজিস্ট্রেশন

অনেকেই অনলাইনে বয়স্ক ভাতা আবেদন করতে এসে দেখেন প্রথমে আপনাকে রেজিস্ট্রেশন করতে বলে। তখন আমরা অনেকেই বুঝতে পারি না যে রেজিস্ট্রেশন করব কিভাবে, রেজিস্ট্রেশন করার ধাপ হলো তিনটি যা নিচে সুন্দর করে তুলে ধরা হলো।

 

 ধাপ ১ –  প্রথমে আপনাকে একটি সচল ফোন নাম্বার দিতে হবে। ইমেইল এড্রেস দেওয়া বাধ্যতামূলক নয়।

    

বয়স্ক ভাতা আবেদন
বয়স্ক ভাতা আবেদন

 ধাপ ২ –  আপনার ব্যবহৃত ফোন নাম্বারে একটি OTP প্রেরণ করা হবে। অর্থাৎ ৬  সংখ্যার একটি কোড পাঠানো হবে।  কোডটি সঠিকভাবে বসাতে হবে।

বয়স্ক ভাতা আবেদন
                             বয়স্ক ভাতা আবেদন

 ধাপ ৩ –  এরপর আপনাকে আপনার পছন্দমত পাসওয়ার্ড নির্ধারণ করতে হবে। মনে রাখবেন পাসওয়ার্ডটি যেন অবশ্যই শক্তিশালী হয়। পরবর্তীতে আবেদনের সময় উক্ত পাসওয়ার্ড এবং ফোন নাম্বার  প্রয়োজন হবে।

বয়স্ক ভাতা আবেদন
                              বয়স্ক ভাতা আবেদন

                             

 বয়স্ক ভাতা নিয়ে কিছু প্রশ্ন ও উত্তর

 প্রশ্ন: কত সাল থেকে বয়স্ক ভাতা চালু হয়?

 উত্তর: ১৯৯৮ সালের সর্বপ্রথম বাংলাদেশে বয়স্ক ভাতা চালু করা হয়। দেশের নিম্নবিত্ত এবং অভাবে মানুষদের ব্যক্তিগত নিরাপত্তা প্রদানের জন্য ১৯৯৭ – ১৯৯৮ অর্থবছরে এ কার্যক্রম চালু করা হয়েছিল।

 প্রশ্ন: বয়স্ক ভাতায় কত টাকা দেওয়া হয়?

 উত্তর: বয়স্ক ভাতার জন্য প্রতি মাসে একজন ব্যক্তি কে ৫০০ টাকা দেওয়া হয়। এক্ষেত্রে মহিলা এবং পুরুষের কোন পার্থক্য নেই। তবে উক্ত টাকাটি প্রতি মাসে প্রদান করা হয় না। বয়স্ক ভাতার টাকা তিন মাস থেকে ছয় মাস অন্তর অন্তর প্রদান করা হয়।

 প্রশ্ন: বয়স্ক ভাতার টাকা কিভাবে প্রেরণ করা হয়?

 উত্তর: বিগত বছরগুলোতে এই খাতের টাকাগুলো ব্যাংকের মাধ্যমে প্রেরণ করা হলেও বর্তমান সময়ে মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে প্রেরণ করা হয়। পূর্বের বছরগুলোতে প্রতিটি মানুষকে ব্যাংকে উপস্থিত হয়ে টাকা উত্তোলন করতে হতো যা অনেকটা অস্থিতিশীল পরিবেশের সৃষ্টি করত।

 প্রশ্ন: কোন মোবাইল ব্যাংকিং এ টাকা প্রেরণ করা হয়?

 উত্তর: বয়স্ক ভাতা টাকা বাংলাদেশের ডাক বিভাগের নগদের মাধ্যমে প্রেরণ করা হয়। আপনার যদি নগদ একাউন্ট না থাকে তাহলে * ১৬৭# ডায়াল করে খুব সহজে এখন করতে পারবেন।

 বয়স্ক ভাতা নিয়ে সতর্কতা

 তৃণমূলের অনেক মানুষ এখনো জানে না বয়স্ক ভাতার পুরো সিস্টেমটা অনলাইন নির্ভর। যার কারণে দেশীয় বিকৃত মস্তিষ্কের মানুষ এখনো সাধারণ মানুষগুলোকে  ঠকিয়ে আসছে। তাই উক্ত জায়গা থেকে আমাদেরকে অবশ্যই সচেতন হতে হবে। আমরা যদি সচেতন হই তাহলে প্রতারক চক্র গুলো প্রতারণা করতে পারবেনা।

 বয়স্কতার টাকা দিয়ে বর্তমানে মোবাইল ব্যাংকিংয়ে দেওয়ার কারণে  অনেকেরই টাকা আত্মসাৎ করছে প্রতারক চক্র।  এর কারণ হলো অনেকেই সঠিকভাবে উত্তোলনের নিয়ম  সম্পর্কে জানে না। এ বিষয়েও আমাদেরকে সচেতন থাকতে হবে নতুবা প্রতারক চক্র গুলো দিন দিন তাদের প্রতারণার জালগুলো আরো বৃহৎ  করে গড়ে তুল।

 

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড 2022

Leave A Reply

Your email address will not be published.